বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছাতকে পুলিশের উপর হামলা ও থানা ভাংচুরের ঘটনায় গ্রেফতার ১৯



ছাতক প্রতিনিধি :::
ছাতকে হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রিয় নেতা মামুনুল হকের সমর্থক কর্তৃক পুলিশের উপর হামলা ও থানা ভাংচুরের ঘটনায় এ পর্যন্ত ১৯জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। রোববার গেফতারকৃত জয়নাল আবেদীন(২৮), রাজন আহমদ(২৬), একরাম হোসেন(২২), সামছুদ্দিন(২৩), সুমন আহমদ(২০), আলী হোসেন(২৮), মোস্তাফিজুর রহমান ফাহিম(১৯), জনি আহমদ(১৯) ও আবুল হোসেন(৩০)কে সুনামগঞ্জ জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে। রোববার রাতে আরো ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে কয়েকজন ছাত্রদল নেতাও রয়েছে বলে জানা গেছে। পুলিশের উপর হামলা ও থানা ভাংচুরের ঘটনায় রোববার ছাতক থানার এসআই আনোয়ার মিয়া বাদী হয়ে ৯৪ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৯০০ জনের বিরুদ্ধে একটি পুলিশ এসল্ট মামলা(নং-০৫) দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে শনি ও রোববার সুনামগঞ্জের সিনিয়র পুলিশ সুপার, ছাতক সার্কেল বিল্লাল হোসেন ও ছাতক থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারী অভিযানে ওসি(তদন্ত) মিজানুর রহমান, সেকেন্ড অফিসার হাবিবুর রহমান পিপিএমসহ পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে রোববার রাতে শহরের চরেরবন্দ এলাকার আব্দুল হান্নানের পুত্র আশরাফুল আলম(৩০), মৃত আবু সাইদের পুত্র শফিকুর রহমান(২৩), মৃত ইন্দার আলীর পুত্র ফাইম আহমদ রাব্বী(২১), মৃত নাসির উদ্দিনের পুত্র দেলোয়ার হোসেন(২৩), মেরাব আলীর পুত্র খালেক(২২), সিরাজ মিয়ার পুত্র শামীম আহমদ(২৫), আকিল আলীর পুত্র মহন মিয়া(২৮), মন্ডলীভোগ এলাকার হাজী নিজাম উদ্দিনের পুত্র তানভির আহমদ(২৫), আসাদুল্লাহ রায়হান(২২) এবং তাতিকোনা এলাকার সৈয়দ তিতুমীরের পুত্র সৈয়দ মেহেদী হাসান(২৫)কে গ্রেফতার করে পুলিশ। ছাতক থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজিম উদ্দিন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
উল্লেখ্য শনিবার রাত প্রায় ৯টায় বিক্ষোভ মিছিল সহকারে হেফাজতের কেন্দ্রিয় নেতা মাওলানা মামুনুল হকের সমর্থকরা বিনা উসকানীতে পুলিশের হামলা ও থানা ভাংচুর করে। হামলায় ৫পুলিশসহ ১৫ ব্যক্তি আহত হয়। হমালাকারীরা ৪টি দোকানকোটাও ভাংচুর করে।

  •