বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মেডিকেলে চান্স পেলেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জের মেধাবী মুহিত ও নাইমুর



দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী ডুংরিয়া গ্রামের দুই মেধাবী মুহিত ও নাইমুর মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়ে পুরো গ্রামে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। কারণ ডুংরিয়া গ্রামের ইতিহাসে দুজনেই প্রথম যে একসাথে মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেলেন।

মুহিত ও নাইমুর দু’জনই একই গ্রামের। মুহিত সিলেট সরকারী মডেল হাইস্কুল এন্ড কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ হতে এইচএসসি পাস করেছেন। এবারের মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষায় মেধাবী মুহিত বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস (১ম বর্ষে) ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। তিনি ডুংরিয়া গ্রামের দক্ষিণ কান্দা নিবাসী ছমছু মিয়ার ছেলে।

সোমবার(৫ এপ্রিল) সকালে মুহিতের বড় ভাই অস্ট্রিয়া প্রবাসী সারোয়ার আলম, ছোট ভাইর মেডিকেলে চান্স পাওয়া নিয়ে ফেইসবুকে এসে আনন্দের খবরে পোস্ট দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, আমাদের ভাইদের এই সফলতার জন্য আমার মা বাবার শ্রম সার্থক হয়েছে।

অপরদিকে চলতি বছর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় একই গ্রামের মেধাবী নাইমুর রহমানও চান্স পেয়েছেন সুনামগঞ্জের বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে। মেধাবী নাইমুর, ডুংরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ থেকে জিপিএ-৫ সহ এসএসসি পাশ করেন, পরে তিনি সিলেট ব্লু বার্ড হাইস্কুল এন্ড কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ হতে জিপিএ-৫ সহ এইচএসসি পাশ করেন। নাইমুর ডুংরিয়া ঘরোয়া জুগি হাটি নিবাসী সৌদি আরব প্রবাসী আমিনুর রহমানের ছেলে তার মায়ের নাম ইয়াসমিন বেগম। নাইমুর ভবিষ্যতে একজন ভাল ডাক্তার হয়ে দেশ ও জনগণের সেবা করতে চান। তিনি সকলের দোয়া প্রার্থী।

এদিকে তাদের সাফল্যে আনন্দে ভাসছে পুরো ডুংরিয়া গ্রামবাসী। এছাড়া অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে তাদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম অমিত বলেন, আমাদের ডুংরিয়া গ্রামের জন্য এটা খুব গৌরবের। কেননা এই সর্বপ্রথম আমাদের গ্রামের দুজন একসাথে সরকারি মেডিকেলে পড়ার সুযোগ পেলেন। এই দুই মেধাবী গ্রামকে আরও গৌরবান্বিত করেছেন। তাই তাদের জন্য রইলো অভিনন্দন ও শুভ কামনা।

  •