রবিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কানাইঘাটে বিদ্যুতের ঝুঁকিপূর্ণ খুটির আতংকে এলাকাবাসী



এক বছরেও টনক নড়েনি কর্তৃপক্ষের

কানাইঘাট প্রতিনিধিঃ
ঝকিঁপূর্ণ খুটি পরিবর্তনের আবেদনের এক বছর পার হলেও টনক নড়েনি কানাইঘাট পল্লিবিদ্যুৎ জোনাল অফিস কর্তৃপক্ষের। কাল-বৈশাখীর এ দিনে যে কোন সময়ে খুটি ভেঙ্গে প্রাণহানির মত ঘটনা ঘটতে পারে এমন আতংকে দিন পার করছেন উপজেলার ২নং ইউপি’র দক্ষিণ লক্ষীপ্রসাদ গ্রামের সাধারণ মানুষ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে ঐ গ্রামের শিক্ষক এম এ বাবুল জানান গ্রামের মৃত মুজি মিয়ার পুত্র আব্দুল মজিদদের বাড়ির পুকুর পাড়ে পল্লিবিদ্যুতের একটি কাঠের খুটি রয়েছে। বেশী দিনের পুরানো হওয়ায় খুটিটির বিভিন্ন স্থানে খানা-খন্দে দুর্বল হয়ে হেলে পড়েছে। এমনকি খুটিতে থাকা বিদ্যুতের তারগুলো নিচের দিকে ঝুকি নিয়েছে। যা মাটি থেকে মাত্র কয়েক ফুট উপরে। যার কারনে দুইদিকে তারা বিপাকে পড়েছেন। একদিকে ঝুকিপুর্ণ খুটি অন্যদিকে খুটির উপরে নুয়ে পড়া বিদ্যুতের তার। এতে যে, কোন সময়ে তারের সাথে প্রাণীকুলে বিপদ হতে পারে বলে তাদের ধারনা। বর্তমানে গ্রামবাসী খুটিটি বাশেঁর হেলানের উপর রেখেছেন বলে এমএ বাবুল জানিয়েছেন। জানা যায় ঐ ঝুকিপুর্ণ খুটিটি দ্রুত পরিবর্তনের জন্য গত ২০২০ সালের ৩০ এপ্রিল ঐ গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের পুত্র আখলাকুল আম্বিয়া সিলেট পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি-২’র কানাইঘাট জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার বরাবরে একটি আবেদন করলেও আজ পর্যন্ত কোন সাড়া মিলেনি সেই আবেদনের। এছাড়াও আবেদনকারী আখলাকুল আম্বিয়া বেশ কয়েকবার কানাইঘাট পল্লিবিদ্যুত জোনাল অফিসে উপস্থিত হয়ে ঝুকিপুর্ণ খুটি কিংবা ঝুলে যাওয়া তারের কথা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলেও নানা অজুহাতের দোহাই দিচ্ছে পল্লিবিদ্যুৎ জোনাল অফিস। যাই হোক ঝুকিপুর্ণ খুটিগুলো দ্রুত পরিবর্তন করে দক্ষিণ লক্ষীপ্রসাদ গ্রামের সাধারণ মানুষকে নিরাপদে রাখতে পল্লি বিদ্যুতের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এব্যাপারে সিলেট পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি-২’র কানাইঘাট জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার ফোন রিসিভ হয়নি।

  •