বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গোলাপগঞ্জের হাসিনা আহাদসহ আসামী ৪

সাইবার ট্রাইব্যুনালে শততম মামলা



পূবের হাওয়া ডেস্ক ::: 
সিলেটের জেলা পরিষদ সদস্য হাসিনা বেগম, গোলাপগঞ্জের আব্দুল আহাদসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে সিলেটের সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা করেছেন সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরী। গত রোববার সাইবার ট্রাইব্যুনালের শততম এ মামলা দায়ের করা হয়। মামলার বাদী সিলেট-৬ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন।
মামলার আসামীরা হল গোলাপগঞ্জ উপজেলার সরস্বতি গ্রামের মৃত আব্দুর রজ্জাকের ছেলে এম এ আজিজ রাজু (৩৫), বাঘা গোলাপনগর (পশ্চিমভাগ) গ্রামের মাতাব উদ্দিনের ছেলে কামরুল ইসলাম (৩০), গোলাপগঞ্জ পৌরসভার রেহানা ভিলার হাসিনা বেগম (৩০), চৌঘরী একাডুমা গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে আব্দুল আহাদ (৪২)।

আদালত মামলা গ্রহণ করে ফৌজদারি কার্যাবিধি ২০০ ধারা মতে বাদী সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন। বাদীর অভিযোগ গ্রহণ করে আগামী ১০ নভেম্বরের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রদানের জন্য গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন সাইবার ট্রাইব্যুনাল, সিলেট এর বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) মো. আবুল কাশেম।
মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, চলতি বছরের ১৯ মে থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে মামলার বিবাদীরা ফেইসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরীর নাম বিকৃতিসহ অশ্লিল কথাবার্তা ও সংলাপ, অডিও, ভিডিও ভিজ্যুয়াল, চিত্র প্রচার করে সামাজিক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা ও সহায়তা করে। এছাড়া বাদীর পরিবারের সুনাম ক্ষুন্ন করে এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। মামলার ১ নম্বর আসামী সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরীর নাম ও ছবি ব্যবহার করে ফেইসবুক আইডি খুলে একজন রাজনৈতিক নেতার কুৎসা রটনা করে। এ ঘটনায় গত ২৪ জুন কোতোয়ালি এসএমপি মডেল থানায় সাধারণ ডায়রি করেন সাংবাদিক হেলাল আহমদ চৌধুরী।
এছাড়াও এই আইডি থেকে বিভিন্ন সময়ে নানা ধরণের উসকানিমূলক মিথ্যা প্রচারণা করা হয়। মামলার ২ নম্বর আসামী কামরুল ইসলাম ফেইসবুকে “চাদের তারা” নামে একটি আইডি খুলে একাধিক ব্যক্তিকে ট্যাগ করে বাদীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মানহানিকর প্রচারণা চালায়। এছাড়া ২৭ মে ২ নম্বর বিবাদী তার নিজ নামীয় আইডি থেকে অপমানকর পোস্ট দেয়। ৩ নম্বর বিবাদী মামলার বাদী মোবাইলে এসএমএস করে হুমকি দেন এবং বাদীর ছবি ব্যবহার করে দুটি নিবন্ধনবিহীন অনলাইনে মানহানিকর বক্তব্য প্রদান করেন। ২৬ এপ্রিল মামলার ৪ নম্বর বিবাদী ফেইসবুক আইডি হ্যাক করে “গণমানুষের গোলাপগঞ্জ” নামীয় আইডি থেকে বিভিন্ন ধরণের হুমকি দিয়ে পোস্ট করেন।
গত ১২ জুলাই মামলার বিবাদীরা গোলাপগঞ্জ চৌমুহনীতে বাদীকে একা পেয়ে হত্যার হুমকি দেয়। এছাড়াও মামলার বিবাদীরা বাদীর সামাজিক, পারিবারিক, ব্যক্তিগত মর্যাদা ক্ষুন্ন করে অনৈতিক সুবিধা আদায়ের চেষ্টা করছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

  •