বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতেও এক হতে পারলনা দিরাই আওয়ামী লীগ




দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন, সরকারি দল আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ছিল বুধবার । বাংলাদেশের প্রবীন এ রাজনৈতিক সংগঠনটির জন্ম দিনের শুভক্ষণেও এক হতে পারলনা দিরাই আওয়ামী লীগ। দলীয় সূত্রে জানা যায়, দলটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায় ও সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়া বলয়ের নেতাকর্মীরা পৃথকভাবে পালন করেন। প্রদীপ বলয় উপজেলা পরিষদ রোডের দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও জন্ম দিনের কেক কাটেন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলতাব উদ্দিন,উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি এডভোকেট সুহেল আহমেদ, সহসভাপতি সিরাজ দৌলা, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট অভিরাম তালুকদার, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান তালুকদার সহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অপর দিকে মোশাররফ বলয় দিরাই পুরান বাজার লঞ্চ ঘাটের কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও জন্ম দিনের কেক কাটেন। উপস্থিত ছিলেন দিরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মঞ্জুর আলম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য আব্দুস জাহির, আওয়ামী লীগ নেতা মতিউর রহমান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রঞ্জন কুমার রায় সহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ । এব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী একাধিক নেতৃবৃন্দ বলেন, জাতীয় নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জীবদ্দশায় আমাদের দলে কোনো বিভাজন ছিল না। দলে কোনো সমস্যা হলে তিনি সবাই কে পরামর্শ করে সমাধান দিতেন । সুরঞ্জিত বিহীন আমরা অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছি । বয়সের ভারে নতজানু সুরঞ্জিত পতœী জয়া সেনগুপ্তা রাজনীতিতে অর্বাচিন বলেই সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের দুই আস্থা ভাজন, দলের নিবেদিত প্রাণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায় ও সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়ার এ বিরোধ। সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বেঁচে থাকলে কখনো এমন হতোনা । কিছু সুযোগ সন্ধানীর প্রদীপ- মোশাররফ বলয় সৃষ্টি করে, যারা আজীবন আমাদের নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের বিরোধীতা করছেন তারা আজ জয়া সেনগুপ্তার আস্থাভাজন হয়েছেন। দলের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে আমরা মনে করি সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্নেহভাজন প্রদীপ-মোশাররফ বিরোধ নিরসন করে স্বার্থপর ও সুযোগ সন্ধানীদের হাত থেকে দল কে রক্ষা করতে হবে। জেলা নেতৃবৃন্দ অচিরেই ব্যবস্থা না দিলে বঙ্গবন্ধুর প্রিয় দল চলে যাবে হাইব্রিডদের দখলে। দলের নেতৃত্বে আসুক ত্যাগীরা সেটাই আমাদের প্রত্যাশা।

  •